করোনা ভাইরাসের উপসর্গসমূহ (কোভিড-১৯)


নিন্মোক্ত উপসর্গ গুলোই মূলত কয়েক হাজার মানুষকে এই ভাইরাস হালকা অসুস্থ্যতা থেকে মৃত্যু পর্যন্ত ডেকে নিয়েছে-


  • জ্বর
  • শুকনা কাশি
  • শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া

কোভিড-১৯ সাধারণত ফ্লু-টাইপ উপসর্গের মাধ্যমে আত্বপ্রকাশ করে, এর মধ্যে জ্বর এবং কাশি অন্যতম। কিছু কিছু রুগীর ক্ষেত্রে নিউমোনিয়া, বুকে ও পেশীতে ব্যথা, শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া এবং দূর্বলতার মাধ্যমে এই রোগ বাড়তে থাকে।

অনেকটা এমন যে- এটা জ্বরের মাধ্যমে শুরু হয়, এরপর হালকা শুকনা কাশি হতে পারে।

এক সপ্তাহের মত পরে, শ্বাসকষ্টের মত শ্বাসনালীতে কিছু সমস্যা দেখা দেয়, এবং ২০% মানুষ সেক্ষেত্রে হসপিটাল এবং বিশেষজ্ঞের সরনাপন্ন হতে হয়।

স্বর্দি, গলা ব্যথা বা নাক আটকে আসার মত সমস্যাও হতে পারে, কিন্তু সেটা খুবই কম ক্ষেত্রে দেখা দেয়। তাই শুধু এগুলো দেখা দিলে- সাধারণ সিজোনাল-কোল্ড হিসেবেই বিবেচিত হবে।



প্রায় ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রেই এটি হালকা এবং রিস্কমুক্ত


  • ৮০ শতাংশ কেইসেই এই রোগ রিস্কমুক্ত ধরা হয়, যেটা কিনা একটা সাধারণ ফ্লু-টাইপ উপসর্গ। যেটা বাসায় বসেই নিরাময়যোগ্য।
  • ১২ শতাংস ক্ষেত্রে এটা মধ্যম পর্যায়ের ধরা হয়। এসময় নিউমোনিয়া এবং হালকা শ্বাসকষ্ট দেখা দিতে পারে। এসময় করোনাভাইরাস টেস্ট করানো উচিৎ।
  • বাকী ৮ শতাংশ কেইসকে ক্রিটিক্যাল ধরা হচ্ছে, যার জন্য হসপিটাল বা বিশেষজ্ঞের সরনাপন্ন হতে হবে।
  • রুগীর বয়স যত বেশি, তার রিস্ক ফ্যাক্টর তত বড় বলে বিবেচিত হয়।
  • অন্যদিকে শিশু, বাচ্চারা এই রোগ থেকে মোটামুটি নিশ্চিন্ত বলা যায়।

যেসকল রোগ থাকা অবস্থায় ঝুঁকি বেশি বলে বিবেচিত হয়


  • হার্টে সমস্যা
  • ডায়াবেটিকস
  • অ্যাজমা বা শ্বাসনলীর অন্য কোনো সমস্যা
  • হাই ব্লাড প্রেশার